১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
Advertisement

দেশের ‘প্রথম’ টেলাডোক পদ্ধতিতে চিকিৎসা কলকাতায়

মোল্লা জসিমউদ্দিন :রবিবার দুপুরে কলকাতার ৭৭ নং ইলিয়ট রোডে মীনাক্ষী মিশন হাসপাতালের তত্ত্বাবধানে ভারতবর্ষে সর্বপ্রথম টেলাডোক কনসাল্টেশন ক্লিনিক চালু হলো। সুপ্রিম কোর্টের বাঙালি বিচারপতি ইন্দিরা বন্দ্যোপাধ্যায় এটির শুভ উদঘাটন করে থাকেন এদিন।টেলাডক প্রযুক্তিতে চিকিৎসা মীনাক্ষ্মী মিশন হাসপাতালের ক্লিনিক  এবার কলকাতার ৭৭ নং   ইলিয়ড রোডে।

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

এবার কলকাতা থেকে তামিলনাড়ুর মীনাক্ষ্মী মিশন হাসপাতালের চিকিৎসকরা সরাসরি রোগীদের সঙ্গে কথা বলবেন, তাঁদের সমস্যা জানবেন। তা দেখে মেডিসিন ব্যবহার বা প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও অন্যান্য পদক্ষেপ নেওয়ার পরামর্শ দেবেন। ভারতবর্ষে এই প্রথম কলকাতায় ওই হাসপাতালের তরফে বসানো হল ‘টেলাডক’ প্রযুক্তি। এই প্রযুক্তির মাধ্যমেই মেডিক্যালের সমস্ত বিভাগের চিকিৎসা এখান থেকেই নিতে পারবেন রোগীরা। রবিবার  টেলাডক মেশিনের উদ্বোধনে ছিলেন সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি ইন্দিরা বন্দ্যোপাধ্যায় ।

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

ছিলেন মীনাক্ষ্মী মিশন হাসপাতালের চেয়ারম্যান ডা. এস গুরুশঙ্কর এবং  রাজ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক নারায়ন স্বরূপ নিগম। এদিন তাঁরা এই প্রযুক্তির ব্যবহার ও  গুরুত্ব তুলে ধরেন। পশ্চিমবঙ্গ, আসামের মানুষদের আর তামিলনাড়ুর মাদুরাইয়ে ছুটতে হবে না। এবার মহানগর কলকাতা থেকেই চিকিৎসা পরিষেবা নেওয়ার সুযোগ থাকছে রোগীদের কে ।

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

এদিন সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি ইন্দিরা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন -” মাদ্রাজ হাইকোর্টের বিচারপতি থাকাকালীন তামিলনাড়ুর এই মীনাক্ষী মিশন হাসপাতালের চিকিৎসা বিশেষত শিশুদের ক্যান্সার চিকিৎসার পদ্ধতি দেখে মুগ্ধ হয়েছিলাম।স্বল্প খরচে এরা মানবিক চিকিৎসা করে থাকে। যা বর্তমানে দুর্লভ”। প্রসঙ্গত বিচারপতির দাদুও ছিলেন একজন সুচিকিৎসক।

Advertisement