১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
Advertisement

বিজেপিকে ভয় পেয়ে এই ধরনের মিটিং : অসীম

নিজস্ব প্রতিনিধি : এদিন কালনায় অভিষেক বন্দোপাধ্যায় কর্মীসভা করলেন আসন্ন লোকসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে।

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

এবং এই কর্মী সভাকে কটাক্ষ করে বর্ধমান পূর্বের বিজেপির প্রার্থী অসীম সরকার বলেন, বিজেপি কে ভয় পেয়ে এই ধরনের মিটিং।আজকেই উনি কেন দিন করলেন। আজকে আমরা নমিনেশন পত্র জমা দেবো আর সেই দিনটাই উনি কেন বেছে নিলেন। এরমধ্যে কী কারণ আছে আপনারা বিশ্লেষণ করলে পেয়ে যাবেন। বিজেপিকে ভয় পেয়ে এই ধরনের মিটিং করতে হচ্ছে বলতেই হবে। এই রকম মিটিং করতে কখনও আসেন না তিনি। কবার আসেন দেখুন না। কেবল তো ভাইপো এসেছেন এরপর পিসিও আসবেন। এমনটাই বক্তব্য বিজেপি প্রার্থী অসীম সরকারের।

Advertisement

 

এদিন সিঙা ফুঁকে যুদ্ধ ঘোষণা করে মনোনয়ন দাখিল বিজেপি প্রার্থীর।

Advertisement

 

 

Advertisement

বৃহস্পতিবার থেকে পূর্ব বর্ধমান জেলায় নির্বাচনী নোটিফিকেশন জারী হতে না হতেই প্রথম দিনে মনোনয়নপত্র দাখিল করলেন বর্ধমান পূর্বের বিজেপি প্রার্থী অসীম সরকার, এসইউসিআই-এর প্রার্থী নির্মল মাঝি এবং বর্ধমান দুর্গাপুর কেন্দ্রে এসইউিসিআই-এর প্রার্থী ডা. তসবিরুল ইসলাম। বর্ধমান দুর্গাপুর লোকসভা কেন্দ্রের রিটার্নিং অফিসার তথা জেলাশাসক কে রাধিকা আইয়ার এবং বর্ধমান পূর্বের রির্টানিং অফিসার হিসাবে অতিরিক্ত জেলাশাসক (সাধারণ) অমিয় দাস এদিন মনোনয়নপত্র জমা নিলেন। যদিও এদিন বর্ধমান পূর্বের বিজেপি প্রার্থী অসীম সরকারের কাগজপত্রে কিছু ত্রুটি থাকায় এদিন তিনি মনোনয়নপত্র দাখিল করলেও শুক্রবারের মধ্যে সংশোধিত কাগজপত্র তাঁকে জমা দিতে বলা হয়েছে। এদিন মনোনয়নপত্র দাখিল করে বর্ধমান দুর্গাপুর কেন্দ্রের এসইউসিআই প্রার্থী ডা. তসবিরুল ইসলাম জানিয়েছেন, জেতার ব্যাপারে তিনি পূর্ণ আশাবাদী। যদিও তিনি এদিন স্বীকার করেছেন এই কেন্দ্রের সমস্ত বুথে এজেণ্ট দেবার মত পরিকাঠামো এখনও তাঁদের তৈরী হয়নি। তাঁরা চেষ্টা করছেন যত বেশি সংখ্যায় এজেণ্ট দেওয়া যায়। তিনি জানিয়েছেন, প্রচারে বেড়িয়ে সাধারণ মানুষের ভাল সাড়া পাচ্ছেন তিনি। সিপিএমের ৩৪ বছরের শাসন মানুষ দেখেছে। বর্তমানে তৃণমূল সরকারের আমলের দুর্নীতি, স্বজনপোষণও মানুষ দেখছে। একইসঙ্গে বিজেপি সরকারের দেউলিপনা এবং স্বৈরতান্ত্রিক মানষিকতাও মানুষ দেখছে। ধর্মের নামে বিভাজন মানুষ গ্রহণ করছে না। তাই মানুষ চাইছেন তাঁর এলাকাগত সমস্যা মিটুক এবং দেশে একটা শান্তির সরকার তৈরী হোক। তসবিরুল ইসলাম জানিয়েছেন, তিনি নির্বাচিত হলে তাঁর কেন্দ্রের বেশ কয়েকটি রেল ওভারব্রীজ তৈরীর পাশাপাশি এলাকার উন্নয়নের জন্য চেষ্টা করবেন।

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

পাশাপাশি এদিন রীতিমত বিশাল মিছিল করে বর্ধমান পূর্বের বিজেপি প্রার্থী অসীম সরকার আসেন মনোনয়ন পত্র দাখিল করতে। এই ঘটনায় নির্বাচনী আচরণ বিধি ভঙ্গ হয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখছে জেলা প্রশাসন। আগামী ১৩ মে চতুর্থ দফায় ভোটগ্রহণ বর্ধমান পূর্ব লোকসভা কেন্দ্রে। চতুর্থ দফায় ভোটের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার কাজ চলবে আগামী ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত। ২৬ এপ্রিল মনোনয়ন পরীক্ষা করে দেখা হবে এবং ২৯ এপ্রিল মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন।

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

বৃহস্পতিবার দুপুরে রীতিমত বাদ্যযন্ত্র সহকারে সুসজ্জিত র‍্যালি করে বর্ধমানে জেলাশাসকের দপ্তরে মনোনয়ন পত্র দাখিল করতে আসেন বর্ধমান পূর্বের বিজেপি প্রার্থী অসীম সরকার। যদিও এর মধ্যে অনেকেই ভিন জেলার বলে সমালোচনা শুরু হয়েছে।

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

শহরের বীরহাটা ঘড়ি মোড় থেকে এই মিছিল আসার পথে কার্জন গেটের সামনে বিশ্ববাংলা লোগো দেওয়া ট্রাফিক আইল্যাণ্ডকে রীতিমত নেচে নেচে বার কতক প্রদক্ষিণ করেন অসীম সরকার।

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

মতুয়া সম্প্রদায়ের মানুষজন এদিন সিঙা ফুঁকে, ডঙ্কা বাজিয়ে এদিনের এই কর্মসূচিতে অংশ নেন। কবিয়াল অসীমবাবু কখনও নেচে, কখনও মনোনয়ন নিয়ে কবিগান গেয়ে, তো কখনও আবার মাটিতে বসে পরে প্রণাম করে মনোনয়নপত্র জমা দিতে এলেন। যা দেখতে পথচলতি মানুষ থমকে দাঁড়িয়ে পড়েন।

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

সম্প্রতি দলের কর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি চিঠি লিখে তাঁর সঙ্গে সমবেত হওয়ার আবেদন করেন। এব্যাপারে তিনি বলেন, আমি চিঠি লিখেছিলাম যদি কেউ মনের দুঃখ নিয়ে বসে থাকেন। এই চিঠিতে সবাই জেগে উঠেছেন। সম্প্রতি বিজেপি নেতা সন্তোষ রায় ফেসবুকে পোস্ট করে অসীম সরকারকে চ্যালেঞ্জ জানান, ক্ষমতা থাকলে তিনি বিধায়ক পদে ইস্তফা দিয়ে লোকসভায় লড়ুন।

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

আর এসম্পর্কে অসীম সরকার বলেন, নির্বাচনে এরকম কোনো নিয়ম নেই। ডঙ্কা বাজানো নিয়ে তিনি বলেন, আমি সবই বাজাতে পারি। সনাতনী সংস্কৃতির যা আছে আমি সেসবই বাজাবার চেষ্টা করি। ভোটে ধর্ষকদের বিসর্জন দিতে পারি, গরু পাচারকারি, রেশন চোর, দুর্নীতিবাজ, চাকরি চোর এদের এবার আমরা আরব সাগরে বিসর্জন দেবো। তিনি বলেন, শর্মিলা সরকার মাকে প্রনাম করি। সে একজন মা তো। তবে আমি অবাক হয়ে গেছি উনি অদৃশ্য মনের রোগ সারেন কিন্তু দৃশ্যমান যে চোরের দল, ধর্ষকের দল উনি দেখতে পারেন না। এটাই দুঃখ। এইজন্য ওনার বিরুদ্ধে ভোটগুলো যাবে।

Advertisement