৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
Advertisement

আন্তর্জাতিক নারী দিবসে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র পাঠচক্রের সন্মাননা পেলেন তরুন কবি ও গবেষক লিটন রাকিব

নূতন ভোরের প্রতিবেদন : আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে “বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র পাঠচক্র” বরিশালের আয়োজনে সম্প্রতি সম্মিলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার ৮মার্চ সন্ধ্যায় বরিশাল নগরীর জাহানারা ইসরাইল স্কুল এন্ড কলেজের হলরুমে এক সম্প্রতির সম্মিলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিশিষ্ট কবি, সাংবাদিক, মানবাধিকার কর্মী নরওয়ে থেকে প্রকাশিত একমাত্র বাংলা পত্রিকা সাময়িকী’র প্রধান সম্পাদক ভায়লেট হালদার ও বিশিষ্ট কবি,গবেষক ও মানবাধিকার কর্মী কলকাতার কবি, গবেষক লিটন রাকিবকে সন্মাননা প্রদান করা হয়।

 

Advertisement

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট সংস্কৃতিজন মুকুল দাস। বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র পাঠচক্র বরিশালের সমন্বয়কারী ও বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার বাহাউদ্দিন গোলাপের সভাপতিত্বে ও বরিশাল রিপোটারস ইউনিটর সাবেক সাধারণ সম্পাদক বাপ্পি মজুমদারের সঞ্চালনায় স্বাগত ভাষন রাখেন শেখ রাসেল ফাউন্ডেশন ইউ এস এ, বরিশাল জেলার সাধারণ সম্পাদক মোর্শেদা শ্রাবণী ।

বক্তব্য রাখেন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সোহেল রানা, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক উন্মেষ রায়, মহিলা আওয়ামী লীগ জামার্ন শাখার সভানেত্রী রোকেয়া সুলতানা।

Advertisement

এছাড়াও বক্তব্য রাখেন বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র পাঠচক্র বরিশালের সদস্য অধ্যাপক মনিরুল ইসলাম, অধ্যাপক পিজুষ বন্দ্যোপাধ্যায়।

প্রধান অতিথি সংস্কৃতিজন মুকুল দাস বলেন, আজকে ২ জন আলোকিত মানুষকে সন্মাননা প্রদান করতে পেরে সত্যিই আমি গর্বিত। আমি আশা করবো আজীবন তাঁরা আলো ছড়িয়ে যাবেন।

Advertisement

সন্মানপ্রাপ্ত গুনিজন কবি ও গবেষক লিটন রাকিব বলেন – পুরুষতন্ত্র থেকে বেরিয়ে এসে মানবতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে হবে। শুধু নারীদিবস নয় হোক মানবদিবস।

সন্মানপ্রাপ্ত গুনিজন ভায়লেট হালদার বলেন, নারী এখনও পিছিয়ে আছে। নারীদের জন্য আলাদা করে একটা দিবস আছে। এনিয়েই আমার প্রশ্ন। নারীদের জন্য কেন দিবস থাকবে, পুরুষদের জন্য তো আলাদা কোন দিবস নাই। আমি নারী বাদী নই নারী বান্ধব।তিনি বলেন, আমাদের আত্মকেন্দ্রিক চিন্তা পরিহার করতে হবে। আমাদের যোগ্য উত্তরসূরী গড়ে তুলতে হবে।

Advertisement