৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
Advertisement

নেতুরপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় বসন্ত উৎসবে মাতল কচিকাঁচারা

সৌমী মন্ডল, বাঁকুড়া:নেতুরপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বসন্ত উৎসবে মাতল কচিকাঁচারা। দোল পূর্ণিমা উপলক্ষে দুদিন বিদ্যালয় বন্ধ ছিল আজ বিদ্যালয় খোলা হলে ছাত্র-ছাত্রীরা আবদার করেন শিক্ষক শিক্ষিকাদের কাছে যে তারা আজ বসন্ত উৎসবে হোলি খেলায় মাতবে তাদের আবদার কে উপেক্ষা করতে পারেননি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক থেকে শুরু করে অন্যান্য শিক্ষক শিক্ষিকা বৃন্দ। তবে শিক্ষক-শিক্ষিকাদের নির্দেশ মতো মিড ডে মিল খাওয়ার পর শিশু শ্রেণী থেকে পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্র-ছাত্রীরা বসন্ত উৎসবে হোলি খেলায় মাতল বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে।

 

Advertisement

 

 

Advertisement

তারা প্রথমে শিক্ষক-শিক্ষিকাদের শ্রীচরণে আবীর দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়ে নিজেদের মধ্যে আবির ও রং মাখামাখি করল সাথে নেতুরপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন নেতুরপুর গার্লস জুনিয়র হাই স্কুলের ছাত্রীরা ও শিক্ষিকা বৃন্দ অংশ নিলেন। একে অপরকে রং মাখিয়ে দিয়ে আনন্দ উপভোগ করলেন ।সাথে ছাত্রীরা বসন্তের গান গেয়ে অনুষ্ঠানটিকে আরো আনন্দমুখর ও প্রাণবন্ত করে তুললো।

 

Advertisement

 

 

Advertisement

এখানে উল্লেখ্য সারেঙ্গা ব্লকের এই বিদ্যালয়টি সারা বছর ধরে বিভিন্ন অনুষ্ঠান করে থাকে। ছাত্র-ছাত্রীরা আনন্দ সহকারে উৎসব অনুষ্ঠান গুলি উপভোগ করে। বিদ্যালয়ের শিশু সংসদের প্রধানমন্ত্রী মনি মেট্যা বলে আমরা আমাদের বিদ্যালয়টিকে নিজের বাড়ি মনে করে এখানে যেমন শিক্ষা আছে ,শাসন আছে ,তেমনি ভালোবাসা আছে আনন্দ আছে যা আমাদের ভবিষ্যৎ জীবনের পাথেয় হয়ে থাকবে। সংসদের খাদ্যমন্ত্রী অর্ণব পন্ডা ,সংস্কৃতি মন্ত্রী শ্যামলী কুম্ভকার বলে আমরা আমাদের বিদ্যালয়টিকে একটি মন্দির মনে করি আমাদের সমস্ত ভাই-বোনরা হয়তো পড়াশোনায় ভালো হয়ে উঠতে পারছি না কিন্তু আমাদের বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকা বৃন্দ আমাদের মধ্যে যে সংস্কৃতি চেতনা ও শ্রদ্ধাবোধ জাগ্রত করেন তা আমাদের পরম প্রাপ্তি আমরা যদি সেগুলো সব মেনে চলতে পারি তাহলে আমরা মানুষ হতে পারব। এখানে উল্লেখ্য এদিনের এই বসন্ত উৎসবে শামিল হয়েছিলেন মিড ডে মিলের সাথে যুক্ত স্বয়ম্ভর গোষ্ঠীর মায়ের। তারাও আবির খেলায় মেতে ওঠেন সবশেষে বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে সকলের জন্য মিষ্টিমুখের ব্যবস্থা করা হয়েছিল।

Advertisement