১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
Advertisement

কল্যাণী মেন স্টেশনে মেল ও এক্সপ্রেস ট্রেন থামার দাবি কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী ও গবেষকদের

নূতন ভোরের প্রতিবেদন : কল্যাণী মেনস্টেশনে থামে না মেল ও এক্সপ্রেস ট্রেনগুলি। হাজারদুয়ারি, ভাগীরথী এক্সপ্রেস এবং ধনধান্য এক্সপ্রেসকে কল্যাণী স্টেশনে থামানোর আবেদন করেছে কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী-গবেষক-অধ্যাপক-আধিকারিক ও কর্মচারীরা। কল্যাণী বিশ্বদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের গবেষক ফারুক আহমেদ উদ্যোগ নিয়ে চিঠি মেল করেছেন পূর্ব রেলের জেনারেল ম্যানেজারকে। তাদের দাবী, কল্যাণী পশ্চিমবঙ্গের একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষাকেন্দ্র ও শিল্পায়নের কর্মসংস্থান।

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়, রাজ্য প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ও বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, কল্যাণী গভর্নমেন্ট ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, জে আই এস কলেজ অফ ইঞ্জিনিয়ারিং, আইডিয়াল কলেজ অফ ইঞ্জিনিয়ারিং, গয়েশপুর গভর্নমেন্ট পলিটেকনিক কলেজ, কলেজ অফ মেডিসিন অ্যান্ড জে.এন.এম হসপিটাল, কল্যাণী মহাবিদ্যালয় (কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্গত অনেক গুলো কলেজের মধ্যে একটি স্নাতক কলেজ), স্নেহাংশুকান্ত আচার্য আইন কলেজ, একটি ডেয়ারি রিসার্চ ইনস্টিটিউট, ন্যাশনাল হোমিওপ্যাথি ইনস্টিটিউট, ইন্ডিয়ান সায়েন্স রিসার্চ ইন্সটিটিউট, একটি কারিগরী শিক্ষাকেন্দ্র মোট ৩ টি বিশ্ববিদ্যালয় সহ মোট ১১ টি কলেজ এবং ১ টি মেডিকেল কলেজ ও ৩ টি গবেষণা কেন্দ্র, এছাড়াও অসংখ্য সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত বেসরকারী স্কুল কল্যাণীকে পার্শ্ববর্তী অঞ্চলের একটি বিশিষ্ট শিক্ষাকেন্দ্রে পরিণত করেছে।

এছাড়াও এখানে রয়েছে জওহরলাল নেহেরু মেমোরিয়াল হাসপাতাল, গান্ধি মেমোরিয়াল হাসপাতাল, ই.এস.আই. হাসপাতাল, নেতাজী সুভাষ সানেটোরিয়াম এবং এইমস মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল। এছারাও আছেনএকাধিক কেন্দ্রীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

ফারুক আহমেদ বলেন, কল্যাণী মেন স্টেশনে থামুক হাজারদুয়ারি, ভাগীরথী এক্সপ্রেস এবং ধনধান্য এক্সপ্রেস। রাজ্যের দূর দূরান্ত থেকে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ কল্যাণীর এইমস হসপিটালে আসেন রোগ নিরাময়ের জন্য। আন্তর্জাতিক মানের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে কল্যাণীতেই যার ফলে বহু মানুষের কল্যাণে এক্সপ্রেস ট্রেন গুলো কল্যাণীতে থামা একান্তই জরুরি হয়ে উঠেছে এই মুহূর্তে। আমাদের আবেদনকে গুরুত্ব দিয়ে রেল মন্ত্রী ও পূর্ব রেলের জেনারেল ম্যানেজার যথাবিহিত করতে উদ্যোগ নেবেন আশা রাখি।

Advertisement