২১শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
Advertisement

ভূপেন্দ্রনাথ দত্ত ও তাঁর স্বদেশ প্রেম

কল্পনা গুপ্ত : ‘যুগান্তর’ এর প্রথম সম্পাদক, ভারতের মার্ক্সবাদী চিন্তাধারা গঠনের আদি প্রবক্তা ১৮৮০ সালের ৪ ঠা সেপ্টেম্বর কলকাতার সিমুলিয়া দত্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। বাংলার নবজাগরণের অগ্রদূত, অনন্য প্রতিভার জ্বলন্ত মূর্তি বিবেকানন্দের কনিষ্ঠ ভাই ভূপেন্দ্রনাথ দত্ত। মা ভুবনেশ্বরী দেবী, পিতা বিশ্বনাথ দত্ত। ভূপেন্দ্রনাথ তাঁর মাত্র চার বছর বয়েসে বাবাকে হারান। ছোটবেলা থেকেই কঠিন দারিদ্রের সাথে তাঁর পরিচয়। তাঁর জীবনের একমাত্র অবলম্বন ছিলেন মা ভুবনেশ্বরী দেবী। বড় হয়ে ওঠার সাথে সাথে ভূপেন্দ্রনাথ দেশ মায়ের পরাধীনতা মোচনের জন্য আকুল হয়ে ওঠেন। এইসময়ে তাঁর হাতে এলো ম্যাতসিনি ও গ্যারিবল্ডির জীবনচরিত এসে পড়ে। তিনি বুঝলেন দেশ থেকে সাম্রাজ্যবাদী শক্তির শোষণ ও অত্যাচার দূর করতে ঠিক এমনি বৈপ্লবিক পথ প্রয়োজন। সেই সময়ে মুক্তি আন্দোলনের বন্যায় সারা দেশ প্লাবিত।

যুগান্তর পত্রিকা প্রকাশের প্রধান উদ্যোক্তা ছিলেন ভূপেন্দ্রনাথ এবং যুগান্তর নামটি তাঁরই দেওয়া। এই পত্রিকার সম্পাদক হয়ে তিনি প্রচুর পরিশ্রম করতেন এবং বৈপ্লবিক ধ্যানধারণা প্রচার করতে থাকেন। ১৯২৭ – ২৮ সাল, সেই সময়ে ৩ নম্বর গৌরমোহন মুখার্জি স্ট্রিটের ভুপেন দত্তের ঘর হয়ে উঠেছিলো বাংলার তরুনদের মার্কসবাদ শিক্ষার প্রাঙ্গণ। মদনমোহন লাইব্রেরিতে ভূপেন্দ্রনাথ নিয়মিত মার্কসবাদের ক্লাস নিতেন যা জন্ম দিয়েছিলো পরবর্তীকালে বাংলার প্রথম সারির নেতাদের। এইসময়ে তিনি বাংলার জেলাগুলি ঘুরে ঘুরে কৃষকদের অবস্থা স্বচক্ষে দেখে তাদের যন্ত্রণার সাথে পরিচিত হন। তাঁর Dialectics of land economics of India বইয়েতে তাঁর অভিজ্ঞতা ও গভীর বৈজ্ঞানিক বিশ্লেষণ ধরা আছে। সারা বাংলায় উত্তাল ছাত্র আন্দোলনের সাথে সাথে সংগঠিত শ্রমিক ও কৃষক আন্দোলনেও তাঁর বিরাট ভূমিকা ছিলো। নিজস্ব উদ্যোগেই ভারতের রাজনীতিতে মার্ক্সবাদী চর্চার ধারা বিকাশে তিনি প্রাণপাত করেছিলেন।

Advertisement

কমিউনিস্ট নেতা সৈয়দ মনসুর হবিবুল্লাহ বলেছেন, ” আমাদের বাংলাদেশের সৌভাগ্য যে আমাদের কৃষক আন্দোলনের গোড়া থেকেই তাঁর মত একজন বিদগ্ধ পুরুষকে আমরা সাথে পেয়েছি।”

১৯২১ এর ২৬ আগষ্ট লেনিন ভূপেন্দ্রনাথকে তাঁর চিঠির উত্তরে লেখেন –

Advertisement

প্রিয় কমরেড দত্ত,

আমি আপনার থিসিস পাঠ করিয়াছি। সামাজিক শ্রেনীসমূহ বিষয়ে আলোচনা করা আমার মতে অনুচিত। আমার মনে হয় আমার কলোনীয় সম্বন্ধে থিসিস অনুযায়ী কার্য করিতে হইবে। যদি ভারতে কৃষক সংঘসমূহ থাকে তৎবিষয়ে সংখ্যা শাস্ত্রীয় তথ্যসমূহ সংগ্রহ করুন।

Advertisement

আপনার

ভি. উলিয়ানভ ( লেনিন)।

Advertisement

লেনিনের এই চিঠি ভূপেন্দ্রনাথের চিন্তার জগতে বিপ্লব এনেছিলো।

তাঁর বহুমুখী প্রতিভা ও স্বদেশানুরাগের কথা অনন্ত যা আজও গবেষণার বিষয়। এই মহাজীবনের পরিসমাপ্তি ঘটে ১৯৬১ সালের ২৫ শে ডিসেম্বর নিজ বাসভবনে মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণে।

Advertisement