১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
Advertisement

পুরীতে ইন্ডিয়ান বিউটি কাউন্সিলের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত আমায়রা মিস্ ইন্ডিয়া- ২০২২ বিজয়ীর মুকুট জিতলেন বঙ্গতনয়া হৃষিতা সরকার

নিজস্ব প্রতিনিধি : সম্প্রতি ওড়িশার পুরীতে ইন্ডিয়ান বিউটি কাউন্সিলের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হলো আমায়রা মিসেস এন্ড মিস্ ইন্ডিয়া ২০২২ । বেশ কয়েকটি পর্বে প্রতিযোগিতার শেষে বিভিন্ন রাজ্য থেকে আগত প্রতিযোগীদের মধ্যে ১৫ জনকে বেছে নেওয়া হয় চূড়ান্ত তথা অন্তিম পর্বের জন্য। দুদিনব্যাপী অন্তিম পর্বে গ্রুপ ডিসকাশন, ট্যালেন্ট রাউন্ড, জুরিদের সঙ্গে সরাসরি প্রশ্নোত্তর পর্ব, ব্যক্তিত্ব, বুদ্ধিমত্তা, রসবোধ ইত্যাদির বিচারে প্রতিযোগীদের বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। পুরস্কার হিসেবে দেওয়া হয় আর্থিক পুরস্কার, স্মারক, মুকুট ও আকর্ষণীয় উপহারসমগ্র।

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

আমেরিকার ক্রিস্টি জুডি, বৃটেনের মঞ্জু ভোরা, ভারতের শীলা পট্টনায়ক, সারথি মিশ্র সহ কুড়িজন জুরি অংশগ্রহণ করেন সেরাদের বেছে নিতে এই অনুষ্ঠানে।

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

বঙ্গ তনয়া হৃষিতা সরকার আমায়রা মিস ইন্ডিয়া ২০২২ এর বিজয়িনী নির্বাচিত হয়ে বিজেতার মুকুট পাওয়ার পথে সেরা র‍্যাম্পওয়াক বিজেতাও ঘোষিত হন। ব্যক্তি জীবনে মিস হৃষিতা, জাতীয় সাইবার অলিম্পিয়াডে স্বর্ণপদক বিজয়ী এক ছাত্রী, যিনি ভুবনেশ্বরের কলিঙ্গ ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডাস্ট্রিয়াল টেকনোলজি থেকে কম্পিউটার সায়েন্সে বি টেক করার সাথে সাথে ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি, মাদ্রাজ থেকে ডাটা সাইন্স ও প্রোগ্রামিং এ স্নাতক করছেন। তিনি আন্তর্জাতিক গবেষণার জন্য ব্রিটিশ কলম্বিয়া ও কানাডায় যাচ্ছেন গ্রীষ্মকালীন অবসরে ভারতের অন্যতম প্রতিনিধি হিসেবে। কানাডার অলাভজনক গবেষণা সংস্থা – Mitacs এর উদ্যোগে এই কর্মযজ্ঞে বিশ্বের কিছু নির্বাচিত জনেদেরই আমন্ত্রণ জানানো হয়। এই রিসার্চ পোগ্রামের অর্থ যৌথভাবে কানাডা ও ভারত সরকার বহন করে।

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

 

 

Advertisement

হৃষিতা সাংবাদিকদের বলেন, আমি গতানুগতিক বাঁধাধরা পদ্ধতি ভাঙতে চাই এবং যাঁরা মনে করেন, কম উচ্চতার মেয়ে হিসেবে কারুর পক্ষে এ ধরনের কোনো প্রতিযোগিতায় তথা সামাজিক উচ্চতায় পৌঁছানো সম্ভব নয়, আমি সেই কাজটাই করে দেখিয়ে দিতে চাই। আমি প্রমাণ করবো, মেয়েদের কাছে কোনো কাজই অসাধ্য নয়, কোন কিছুই অন্তরায় নয়। আমার স্থির ধারণা, উচ্চতার শিখরে পৌঁছতে যে কোন ক্ষেত্রে দৈহিক উচ্চতা কোনো প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে পারে না। নারীদের আত্মিক সৌন্দর্য্য আর সঠিক শিক্ষাই সৌন্দর্যের সেরা মাপকাঠি।

Advertisement