৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
Advertisement

কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্ত ও দূরবর্তী শিক্ষা অধিকরণে ‘ব্যক্তিগত জনসংযোগমূলক কর্মসূচি’র উদ্বোধন

নূতন ভোরের প্রতিবেদন : কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্ত ও দূরবর্তী শিক্ষা অধিকরণ বা ‘ডি ও ডি এল’ এর ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র-ছাত্রীদের ‘পার্সোনাল কন্টাক্ট প্রোগ্রাম’ বা ব্যক্তিগত জনসংযোগের কর্মসূচিমূলক পঠন-পাঠনের উদ্বোধন করলেন কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান উপাচার্য অধ্যাপক মানসকুমার সান্যাল। বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনি নিযুক্ত হওয়ার পরেই দূরবর্তী শিক্ষা অধিকরণের অধীনে আটটি কোর্সের পঠন-পাঠনের অনুমোদন মেলে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন থেকে। ২০২১ সাল থেকে ২০২৬ সাল পর্যন্ত ইউজিসির অনুমোদন মিলেছে। ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল গতবছরের শেষের দিকে। ইতিমধ্যে নথি যাচাইকরণ প্রক্রিয়াও সম্পন্ন হয়েছে। এবার আনুষ্ঠানিকভাবে পঠন-পাঠন শুরুর পালা।

উপাচার্য জানান, আমরা আপাতত পরবর্তী পাঁচ বছরের জন্য দূরবর্তী শিক্ষাকেন্দ্রে মোট আটটি বিষয়ের পঠন-পাঠনের অনুমোদন পেয়েছি। তাছাড়া পড়ুয়াদের চাহিদা মোতাবেক আমরা তাঁদের তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর উন্নততর পরিষেবা দিতে বদ্ধপরিকর। পাশাপাশি দূরশিক্ষার জন্য উন্নত পরিকাঠামো গড়ে তুলছি। আজকের অনুষ্ঠানে ছাত্র-ছাত্রীদের সক্রিয়তা ছিল নজর কাড়ার মতো। এই অতিমারীর সময়েও বর্তমান পড়ুয়াদের উৎসাহ ও উদ্দীপনা দেখে আমি অভিভূত। দূরশিক্ষা কেন্দ্রের ছাত্র-ছাত্রীদের সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার চেষ্টা করব।

Advertisement

দূরশিক্ষার মাধ্যমে পঠন-পাঠনের ক্ষেত্রে কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের মুকুটে মুক্ত ও দূরবর্তী-শিক্ষাকেন্দ্র অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে রাজ্যের উচ্চশিক্ষার আঙ্গিনায়। প্রায় ৭৫০০ পড়ুয়া ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হয়েছে। এখানে বিজ্ঞান ও কলা অনুষদের ৮ টি বিষয়ে পঠন-পাঠন করানো হয়। বিষয় গুলি হল- বাংলা, ইংরেজি, ইতিহাস, শিক্ষাবিজ্ঞান, জু‌ওলজি, বোটানি, ভূগোল এবং অংক। বিজ্ঞান বিষয়ক দূর শিক্ষার মাধ্যমে পঠন-পাঠনের ক্ষেত্রেও শুধুমাত্র রাজ্য নয় তথা ভারতবর্ষের মানচিত্রের নিরিখে অনন্য নজির গড়েছে কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়। দূরশিক্ষা সহায়ক কেন্দ্র হিসেবে মোট ২৭ টি অধ্যয়ন কেন্দ্র রয়েছে এই অধিকরণের অধীনে। জু‌ওলজি, বোটানি, ভূগোল ও অংকের মত বিষয়ে দূরবর্তী শিক্ষায় স্নাতকোত্তর ডিগ্রি প্রদান করা হয়। উত্তর ২৪ পরগনা, নদিয়া ও মুর্শিদাবাদ জেলায় বসবাসকারী ছাত্রছাত্রীরা বিশেষভাবে উপকৃত হয় এই দূরশিক্ষা কেন্দ্রের মাধ্যমে। বলা বাহুল্য, বহু প্রত্যন্ত অঞ্চলের ছাত্রছাত্রীরা উচ্চশিক্ষার সুযোগ পেয়েছে কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের এই মুক্ত ও দূরশিক্ষা কেন্দ্রের সক্রিয় উদ্যোগে।

দূরবর্তী শিক্ষাকেন্দ্রের অধিকর্তা অধ্যাপিকা তপতী চক্রবর্তী জানান, নব উদ্যোগে উপাচার্যের নেতৃত্বে কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয় দূরবর্তী শিক্ষায় পঠন-পাঠন ও অধ্যাপনায় আমাদের দূরশিক্ষা কেন্দ্র নতুন কিছু দিশা দেখাতে প্রস্তুত। এদিনের এই সূচনা অনুষ্ঠানের সঞ্চালনা করেন দূরবর্তী শিক্ষাকেন্দ্রের উপ-অধিকর্তা অধ্যাপক শুভ্রতনু ভট্টাচার্য। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন আই কিউ এ সি-র অধিকর্তা অধ্যাপক নন্দকুমার ঘোষ, লোকসংস্কৃতি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক সুজয়কুমার মণ্ডল এবং দূরবর্তী শিক্ষাকেন্দ্রের সহ অধিকর্তা, অধ্যাপক-অধ্যাপিকা ও শিক্ষা কর্মীবৃন্দ।

Advertisement