২০শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
Advertisement

অমৃত মহোৎসবে দামোদর ভ্যালি কর্পোরেশন

দিপেন ঢাং :স্বাধীনতার ৭৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে ভারত সরকার দেশজুড়ে স্বাধীনতার অমৃত মহোৎসব পালন করার কর্মযজ্ঞ শুরু করেছে।

 

Advertisement

সেই কর্মযজ্ঞ শেষ হবে ১৫ আগস্ট স্বাধীনতার প্লাটিনাম জুবিলের পূর্তি দিয়ে । সেই স্বাধীনতারই প্রায় সমবয়সী ইংরেজ মুক্ত ভারতে প্রথম বহুমুখী নদী পরিকল্পনা হল দামোদর ভ্যালি কর্পোরেশন বা ডিভিসি।

 

Advertisement

এই রাষ্ট্রীয় সংস্থাটি বর্তমানে দেশের অন্যতম শ্রেষ্ঠ বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী সংস্থা এবং বিদ্যুৎ পরিবহনে ডিভিসি হল দেশের ১ নম্বর। সেই সংস্থাটির ভবিষ্যৎ নাকি বেসরকারি সংস্থার হাতে চলে যেতে পারে এমন ইঙ্গিত রয়েছে দেশবাসীর কাছে। আগামী ৭ জুলাই ডিভিসির প্রতিষ্ঠা দিবস। সেই উপলক্ষে গত ৩০ জুন ঝাড়খণ্ডের চন্দ্রপুরা থেকে কলকাতার সদর দপ্তর পর্যন্ত সাইকেল যাত্রায় বেরিয়েছেন ডিভিসির অবসরপ্রাপ্ত যুগ্ম সচিব বিশ্বজিৎ সেন। ৬২ বছরের বিশ্বজিৎ সেন সোমবার ডিভিসির মেজিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে এসে পৌঁছালেন। সেখানে তাকে রাজকীয় সংবর্ধনা দেন মেজিয়া বিদ্যুৎ প্রকল্প কর্তৃপক্ষ। ডিভিসি আবাসন সংলগ্ন লাগাপাড়ার কলোনি গেট থেকে তাকে সাইকেল র‍্যালি করে প্রকল্পের অডিটোরিয়ামে নিয়ে আসা হয়। সেখানেও আরেক প্রস্থ সংবর্ধনা দেন প্রকল্পের চিফ ইঞ্জিনিয়ার সুধীর কুমার ঝা সহ অন্যান্য আধিকারিকেরা।

তার সাইকেল যাত্রার উদ্দেশ্য সম্পর্কে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বিশ্বজিৎ সেন বলেন, স্বাধীন ভারতের প্রথম বহুমুখী নদী পরিকল্পনা হল ডিভিসি। দামোদর নদকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা এই সংস্থাটি ছিল দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী পন্ডিত জহরলাল নেহেরুর স্বপ্নের সংস্থা। বর্তমানে ডিভিসি শাখা প্রশাখা মেলে দেশ-বিদেশে তার কর্মকাণ্ড ছড়িয়ে দিয়েছে। বিশ্বজিৎ বাবু বলেন, গত ৭৫ বছরে ধরে ডিভিসি দেশ ও জাতির প্রতি যে অবদান রেখেছে তা জনমানসে ছড়িয়ে দিতেই আমার সাইকেল যাত্রা। পাশাপাশি আমিও ডিভিসি পরিবারের একজন সদস্য। তারই অঙ্গ হিসাবে আমি চাই দেশবাসী জানুক তার কীর্তি এবং এই রকম রাষ্ট্রীয় সংস্থা গুলি জাতির প্রতি কতটা দায়বদ্ধ। তাই ডিভিসির মত রাষ্ট্রীয় সংস্থাগুলিকে রক্ষা করতে জনগণকেই এগিয়ে আসতে হবে। এই বার্তাই আমি দিতে চেয়েছি। আগামী ৭ জুলাই ডিভিসির প্রতিষ্ঠা দিবস। ওই দিন সকালে বিশ্বজিৎ বাবু কলকাতার সদর দপ্তর এসে পৌঁছাবেন । সেখানে থেকে তাকে গাড়ির কনভয় করে নিয়ে যাওয়া হবে সায়েন্স সিটির অডিটোরিয়ামে। ভারত সরকারের মিনিস্ট্রি অফ পাওয়ার সেখানে তাকে সংবর্ধনা দেবে বলে জানান মেজিয়া বিদ্যুৎ প্রকল্পের সিনিয়র এডিশনাল ডাইরেক্টর ওম প্রকাশ। তিনি বলেন, বিশ্বজিৎ সেন ডিভিসি পরিবারকে গর্বিত করেছেন । উনি ৩০ জুন ঝাড়খণ্ডের চন্দ্রপুরা থেকে সাইকেল যাত্রা শুরু করেছেন। তারপর বোকারো  তিলাইয়া, হাজারীবাগ, বেরমো, কোডারমা, পুটকি, মাইথন, পাঞ্চেত হয়ে এ রাজ্যের রঘুনাথপুর বিদ্যুৎ প্রকল্পে ঢুকেছেন রবিবার। সোমবার মেজিয়ায় কাটাবেন তিনি। মঙ্গলবার ডিভিসির অন্ডাল, দুর্গাপুর বিদ্যুৎ প্রকল্প ঘুরে মুচিপাড়া সাব-স্টেশন, বর্ধমান হয়ে হাওড়া পৌঁছাবেন বুধবার। বৃহস্পতিবার কলকাতার হেডকোয়ার্টার্সে পৌঁছে তার ৬৫০ কিমি সাইকেল যাত্রার সমাপ্তি ঘোষনা করবেন ডিভিসির চেয়ারম্যান আর কে সিং।

Advertisement