২০শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
Advertisement

দিল্লি বইমেলা ও বঙ্গ সংস্কৃতি উৎসবের শুভ উদ্বোধন করলেন দীপক ভট্টাচার্য, দেবাশিস ভৌমিক ও তপন সেনগুপ্ত

নূতন ভোরের প্রতিবেদন : দিল্লি বইমেলা ও বঙ্গ সংস্কৃতি উৎসবের শুভ উদ্বোধন করলেন দীপক ভট্টাচার্য, দেবাশিস ভৌমিক ও তপন সেনগুপ্ত সহ বিশিষ্টজনেরা। বৃহস্পতিবার ২৪ মার্চ ২০২২, থেকে মুক্তধারা মঞ্চে এক সুন্দর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শুরু হয়ে গেল উনবিংশতম বাংলা বই মেলা ও সাহিত্য উৎসব। প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করে অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করেন সভাপতি দীপক ভট্টাচার্য ও আরো অনেকে গুণীজন।

অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন কলাসন্ধানী নৃত্য গোষ্ঠী, ঝর্ণাধারা সঙ্গীত সংস্থা ও গানের তরী সঙ্গীত সংস্থা।

Advertisement

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন দেবাশিস ব্যানার্জী ও মৌসুমী চক্রবর্তী আচার্য্য। দিল্লি বইমেলা ও সাহিত্য উৎসব চলবে আগামী রবিবার ২৭ মার্চ পর্যন্ত।

প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে মুক্ত ধারা প্রাঙ্গণে চলবে বইমেলা এবং মুক্তধারা প্রেক্ষাগৃহে ও সভাগৃহে

Advertisement

চলবে নানা ধরণের সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

বইমেলা ও বঙ্গ সংস্কৃতি উৎসবকে বর্ণময় করে তুলতে দিল্লির বাসিন্দাদের মধ্যে উৎসাহ দেখা গিয়েছে।

Advertisement

 

বই কিনুন, বই পড়ুন এবং প্রিয়জন দের বই উপহার দিন। বলছিলেন, বেঙ্গল অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক তপন সেনগুপ্ত।

Advertisement

 

 

Advertisement

তিন বছর পরে আবার দিল্লিতে বইমেলা হচ্ছে। দিল্লি বেঙ্গল অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে ও পরিচালনায় বঙ্গ সংস্কৃতি উৎসব ও বাংলা বইমেলা। এবং ‘সেরা বাঙালি সম্মান’ প্রদান অনুষ্ঠান। ২৪ থেকে ২৭ মার্চ অনুষ্ঠিত এই বইমেলায় হাজির থাকছে নিয়োগী, আনন্দ, দে’জ, অভিযান পাবলিশার্স, উদার আকাশ, সৃষ্টিসুখ, বইওয়ালা বুক ক্যাফেসহ বেশ কয়েকটি প্রকাশনা।

নিউ দিল্লির গোল মার্কেটে বঙ্গ সংস্কৃতি ভবন, মুক্তধারায় আয়োজিত ঊনবিংশ দিল্লি বইমেলা সেখানকার বাঙালিদের কাছে একটি বার্ষিক উৎসব। করোনার ভ্রুকুটি পেরিয়ে বইয়ের হাত ধরে দিল্লির বাঙালিরা আবার ছন্দে ফিরে আসতে চাইছে এই মেলার মাধ্যমে।

Advertisement

 

মেলায় উপস্থিত থাকবেন শিক্ষাবিদ পবিত্র সরকার, কবি সুবোধ সরকার, সৈয়দ হাসমত জালাল, সাংবাদিক জয়ন্ত ঘোষাল প্রমুখ। অভিযান পাবলিশার্স-এর কর্ণধার মারুফ হোসেন, উদার আকাশ প্রকাশনের কর্ণধার ফারুক আহমেদ প্রমুখ।

Advertisement

 

“কম সময়ের নোটিসেও দিল্লি ও পার্শ্ববর্তী অঞ্চলের বাঙালিদের জন্য হাজির হলেন বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ প্রকাশন সংস্থা তাঁদের বই নিয়ে। এখানকার পাঠক, বইক্রেতা এবং সাহিত্য অনুরাগীদের মধ্যে উৎসাহ দেখা গিয়েছে।

Advertisement

 

বইমেলা হল বই অনুরাগী এবং বই প্রকাশক ও বিক্রেতার মেলবন্ধন।” বলছিলেন অতিরিক্ত সাধারণ সম্পাদক সৌরাংশু সিংহ।

Advertisement

 

এই বইমেলায় দিল্লির লেখক কবিদের বইয়ের মোড়ক উন্মোচিত হল।

Advertisement

 

সেগুলি হল:

Advertisement

 

সমৃদ্ধ দত্ত-মন্দির মিস্ট্রি-সৃষ্টিসুখ।

Advertisement

 

সৌরাংশু – ময়দানি স্ক্র‍্যাপবুক – সৃষ্টিসুখ।

Advertisement

 

চঞ্চল ভট্টাচার্য – ঘরে ফেরার ডাক- সৃষ্টিসুখ।

Advertisement

 

ইন্দিরা দাশ- ২৫টি গল্প- একুশ শতক।

Advertisement

 

প্রসেনজিৎ দাশগুপ্ত- যোগী মত যা- ইতিকথা (অভিযানে পাওয়া যাবে)।

Advertisement

 

মুন্সী মহম্মদ ইউনুস-খুব ভুল হয়েছিল-শাম্ভবী।

Advertisement